মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে কাপাসিয়ায় মানববন্ধন

দেশজুড়ে প্রতিবেদক: দেশসেরা দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম, প্রকাশক, বার্তা সম্পাদক ও প্রতিবেদকের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারে দাবিতে মানববন্ধন করেছে কাপাসিয়া  প্রেসক্লাব।

আজ শনিবার সকালে গাজীপুরের কাপাসিয়া শহরে আয়োজিত প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধনে সাংবাদিক, সুশিল সমাজ, শ্রমিক, সাধারণ মানুষসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

মানববন্ধন পূর্ব প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সংবাদপত্রের উপর হামলা-মামলা চালিয়ে প্রতিক্রিয়াশীল চক্র দেশে মুক্ত মত প্রকাশের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করে চলছে। তারা দেশে উন্নয়নের জোয়ার বইয়ে দেয়া শেখ হাসিনার সরকারকে বিব্রত আর বিতর্কিত করতে চায়। মামলা দিয়ে সাংবাদিকের কলম বন্ধ করতে পারবে না।

বক্তারা আরও বলেন, সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। জাতীয় নির্বাচনের ঠিক পূর্ব মুহূর্তে সংবাদপত্র ও সাংবাদিকদের উপর দমন-পীড়ন চালিয়ে যারা সরকারের ভাবমূর্তি বিনষ্ট করার পাঁয়তারা চালাচ্ছে তারা গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত।

Tech Point

কাপাসিয়া প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি এফ এম কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে ও প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক বেলায়েত হোসেন শামীমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন কাপাসিয়া উপজেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন প্রধান, সহ সভাপতি সোহরাব উদ্দিন, উপজেলা কৃষকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল আলম, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রাজীব ঘোষ, কাপাসিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি সাইফুল ইসলাম, দুর্গাপুর ইউনিয়ন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম, তরগাঁও ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগ সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম, কাপাসিয়া উপজেলা বিএনপির নেতা ও সাবেক চেয়ারম্যান আজগর হোসেন খান, কাপাসিয়া উপজেলা যুবদল সহ সভাপতি আমিনুর রহমান, কাপাসিয়া বাজার ব্যবসায়ী নেতা হারুন অর রশিদ, ক্যামব্রিজ স্কুলের কর্ণধার মিজানুর রহমান, কাপাসিয়া দলিল লিখক সমিতি সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম, দলিল লিখক মাহফুজুর রহমান রাসেল, কাপাসিয়া রিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহআলম শাহীন, ব্যবসায়ী কাজী নাসিম, শরীফ শেখ, কাপাসিয়া প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি সাইফুল ইসলাম শাহীন (যুগান্তর), সহ সভাপতি সঞ্জিব কুমার দাস (সমকাল), কাপাসিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শামসুল হুদা লিটন (ইনকিলাব), জাকির হোসেন কামাল (আমাদের সময়), গোলাম সারওয়ার (দেশ প্রতিদিন), সমীর বণিক (সংবাদ), আব্দুল কাইয়ুম (মানব কণ্ঠ), আকরাম হোসেন রিপন (আলোকিত বাংলাদেশ), হোসাইন আলী বাবু (এশিয়ান টিভি), সুমন শেখ (বাংলা টিভি) তপন বিশ্বাস (সকালের খবর), শাকিল হাসান (যায়যায়দিন), সফিকুল আলম সবুজ (প্রতিদিনের সংবাদ), হাজী সাইফুল ইসলাম (দৈনিক জনতা), আবু সাঈদ (নয়া দিগন্ত), বিজ্ঞাপন চ্যানেলের সম্পাদক সাইফুল ইসলাম মোল্লা, দেশজুড়ে ডট কমের সম্পাদক মো. জহিরুল হক, নিউজ সমাহার সম্পাদক হাবিবুর রহমান, মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল (সংবাদ প্রতিদিন), সাইদুল ইসলাম রনি (আজকালের খবর), আনিসুল ইসলাম (মুক্ত সংবাদ), সাইফুল ইসলাম নান্না (শীতলক্ষ্যা), মনিরুল হক সোহাগ (স্বাধীন সংবাদ), মাহবুবুর হোসেন (আমাদের কণ্ঠ), আশরাফুল আলম (অগ্নিশিখা), রাশিদুজ্জামান রাসেল (হক ইনসাফ) প্রমুখ।

বগুড়ার মঞ্জুরুল আলম মোহন ও আবদুল মান্নান ওরফে ফেম মান্নানকে ইয়াবা গডফাদার আখ্যা দিয়ে বক্তারা অবিলম্বে তাদের ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান।

এদিকে প্রতিবাদ ও মানববন্ধনে একাত্মতা প্রকাশ করেন দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী বঙ্গতাজ তাজউদ্দীন কন্যা সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সিমিন হোসেন রিমি এমপি, সাবেক এমপি কাপাসিয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্, কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সভাপতি ও কাপাসিয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেন মোল্লা, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও ঢাকা বারের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মমতাজ উদ্দিন মেহেদী, গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগ সহসভাপতি অ্যাডভোকেট আমানত হোসেন খান।

উল্লেখ্য, গত ২৮ জানুয়ারি বাংলাদেশ প্রতিদিনের পেছনের পৃষ্ঠায় ‘বগুড়ার ঘাটে ঘাটে ইয়াবা’ সংবাদে তোলপাড় শুরু হয় বগুড়া তথা সারা দেশে। টনক নড়ে বগুড়া জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনে। আর এই সংবাদে মাদক কারবারী ও গডফাদারদের নাম উঠে আসে। এর মধ্যে বগুড়ার মাদকের গডফাদার মঞ্জুরুল আলম মোহন ও আব্দুর মান্নান ওরফে ফেম মান্নানের নাম ছিল।

এরপর নিজেদের দোষ ঢাকতে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি ওই ইয়াবা গডফাদার মঞ্জুরুল আলম মোহন ও আব্দুর মান্নান ওরফে ফেম মান্নান বগুড়া আদালতে ৯ কোটি টাকার মানহানির পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় বাংলাদেশ প্রতিদিনের সম্পাদক নঈম নিজাম ও প্রকাশক ময়নাল হোসেন চৌধুরী, বার্তা সম্পাদক ও প্রতিবেদককে বিবাদী করা হয়েছে।